• A
  • A
  • A
একটা থাপ্পড় বারবার দেখাচ্ছে মিডিয়া, বলছেন জেলাশাসকের বান্ধবী

আলিপুরদুয়ার, ৮ জানুয়ারি : "নোংরা কথা লেখার সময় মনে ছিল না। প্রত্যেকটা মেয়েকে নিয়ে রাস্তায় দাঁড়াব।" জেলাশাসক নিখিল নির্মল মারছেন, আর পাশ থেকে এই মন্তব্য করছেন সমাজকর্মী সায়নী সরকার। এদিকে, যুবকের পরিবারের অভিযোগ, মারধরও করেছেন সায়নী। তবে তার কোনও ভিডিয়ো পাওয়া যায়নি। এই অভিযোগ মানতে নারাজ সায়নী। তাঁর বক্তব্য, "তেমন কিছুই হয়নি। মিডিয়ায় একটা থাপ্পড়কে বারবার দেখানো হচ্ছে।"

Loading the player...
বিনোদকে চড় মারছেন জেলাশাসকের স্ত্রী নন্দিনী


সোশাল মিডিয়ায় আপত্তিকর মন্তব্যের অভিযোগে গতকাল বিনোদ সরকারকে ফালাকাটা থানায় এনে বেধড়ক মারধর করেন জেলাশাসক ও তাঁর স্ত্রী। ছিলেন সায়নীদেবীও। অভিযুক্তকে মেরে ফেলার হুমকিও দেন নিখিলবাবু। ঘটনার ভিডিয়ো ভাইরাল হওয়ার পরই শুরু হয় বিতর্ক। এই ঘটনার জন্য জেলাশাসককে ওই পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন উত্তরবঙ্গের ডিভিশনাল কমিশনার বরুণ রায়। এদিকে একজন সমাজকর্মীর সামনে কীভাবে থানায় ঢুকে যুবককে মারধর করা হল ? এই প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই।


স্ত্রীকে অশালীন মন্তব্যের অভিযোগ, যুবককে থানায় মারধর জেলাশাসকের
এ প্রসঙ্গে সায়নীদেবী বলেন, "ওই যুবক আমাদের বাজে কথা বলছিল। তাই তার বিরুদ্ধে ফালাকাটার BDO-কে অভিযোগ জানিয়েছিলাম। এরপর তাকে একটি গ্রুপে অ্যাড করে কথা বলা শুরু করি। সেই গ্রুপের কথোপকথন স্ক্রিনশট নিয়ে অভিযোগ করি। জেলাশাসকের স্ত্রীসহ আমাদের যেখানে কোনও সম্মান নেই সেখানে সাধারণ মহিলাদের এরা কী না কী বলতে পারে এই ভেবে অভিযোগ করেছিলাম।" তবে জেলাশাসক বা তাঁর নিজের মারধর করা প্রসঙ্গে কোনও মন্তব্য করেননি সায়নীদেবী। শুধু বলেন, "যে ভিডিয়ো মিডিয়া দেখাচ্ছে তা ঠিক নয়। ঘটনাটি বেশি করে দেখানো হচ্ছে। একটা থাপ্পড়কে বারবার দেখানো হচ্ছে। তেমন কিছুই হয়নি। একজন মেয়ে হিসেবে আমি নন্দিনীর (জেলাশাসকের স্ত্রী) পাশে দাঁড়িয়েছি।"

সায়নী সরকার ও নন্দিনী

এই ঘটনা প্রসঙ্গে বিনোদের পরিবারের বক্তব্য, "সায়নী সরকার লাথি মেরেছেন, জুতো দিয়ে গুঁতো মেরেছেন। বিনোদ অন্যায় করে থাকলে তার সাজা আমরা চাই। কিন্তু, থানার মধ্যে নিয়ে গিয়ে পুলিশের সামনে অন্য কেউ তাকে মারধর করবে, সেটা আইনে আছে কি না আমরা জানতে চাই। যদি এটা আইনে থাকে তাহলে ঠিক আছে। আর, আইনে না থাকলে আমরা ওই তিনজনের (জেলাশাসক, তাঁর স্ত্রী ও সায়নীদেবী) সাজা চাই।"
আরও পড়ুন : সস্ত্রীক জেলাশাসকের গ্রেপ্তারি চেয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি অশোকের
সায়নীদেবীর মন্তব্যের প্রেক্ষিতে আলিপুরদুয়ারের অভিভাবক মঞ্চের সদস্য ল্যারি বোস বলেন, "জেলাশাসকের স্ত্রীর বান্ধবী বলে উনি যা খুশি করবেন ? এটা মেনে নেওয়া যায় না। উনি কী করে থানায় ঢুকে গ্রেপ্তার হওয়া যুবককে জেরা করছেন ? এটা আইনবিরুদ্ধ। একজন সমাজকর্মী হয়ে তিনি মারধরের ঘটনা নিজে চোখে দেখছেন আর প্রতিবাদ করলেন না ? এটা ঠিক করেননি।"

আরও পড়ুন : আলিপুরদুয়ারের জেলাশাসককে পাঠানো হল ছুটিতে

CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  আয়না ২০১৮

  MAJOR CITIES