• A
  • A
  • A
মানিকচকে ফের তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষ; নেত্রী বললেন, "আমাদের বাঁচান"

মানিকচক, ১ জানুয়ারি : তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠা দিবসে প্রধান ও উপপ্রধান কে হবেন, তা নিয়ে গোপালপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের বালুটোলা গ্রামে ফের তৃণমূল কংগ্রেসের গোষ্ঠী সংঘর্ষ হল। সংঘর্ষে জখম হয়েছেন তৃণমূলের স্থানীয় নেতা সুকুরুদ্দিন শেখ। বর্তমানে সে মানিকচক গ্রামীণ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। খবর পেয়ে মানিকচক থানার পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

Loading the player...

গত পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে শেখ সইফুদ্দিন CPI(M) ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেয়। অভিযোগ, তারপর থেকেই তৃণমূলে নিজের আধিপত্য বিস্তারে সক্রিয় হয় সে। পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর কংগ্রেসের জয়ী সদস্যরা তৃণমূলে যোগ দেন। এরপর স্থানীয় তৃণমূল শিবির সুকুরুদ্দিন ও সইফুদ্দিন এই দুটি গোষ্ঠীতে বিভক্ত হয়।
২৭ অগাস্ট সুকুরুদ্দিন গোষ্ঠীর সীমা বিবি ও মমতাজ বেগম গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান ও উপপ্রধান পদে নির্বাচিত হওয়ার পর দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষে চার বছরের একটি শিশু এবং সালাম শেখ ও আজাহার শেখ নামে দুই তৃণমূল কর্মীর মৃত্যু হয়। সেই ঘটনায় গ্রেপ্তার হয় সইফুদ্দিন গোষ্ঠীর পাঁচজন।


আজ ফের প্রধান-উপপ্রধান পদ নিয়ে সংঘর্ষ বাধে দুই গোষ্ঠীর মধ্যে। অভিযোগ, আজ সইফুদ্দিন গোষ্ঠীর লোকজন পিকনিক করে বালুটোলায় ফেরার সময় সুকুরুদ্দিনের বাড়ির সামনে কয়েকটি বোমা ফাটায়। প্রতিবাদ করলে বেধড়ক মারধর করা হয় সুকুরুদ্দিনকে। এরপর সংঘর্ষ বাধে দুই গোষ্ঠীর মধ্যে। বোমাবাজির পাশাপাশি চলে গুলি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থানে যান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গ্রামীণ) দীপক সরকার। এলাকায় নামানো হয় পুলিশ ও RAF।

স্থানীয় তৃণমূল নেত্রী তথা পঞ্চায়েতের উপপ্রধান মমতাজ বেগম বলেন, "গোপালপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠনের দিন থেকেই বিবাদের শুরু। সেদিন এখানে বড় ঝামেলা হয়েছিল। তিন মাস নিজের বাড়িতে ঢুকতে পারিনি। বাড়ি ফেরার পর সইফুদ্দিনের লোকজন খুনের হুমকি দিচ্ছে। ওরা জবরদস্তি প্রধান ও উপপ্রধান পদের দখল নিতে চাইছে। আমাদের বাঁচান।"

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গ্রামীণ) জানান, আপাতত ১৫ জনকে আটক করা হয়েছে। এলাকা থেকে তিনটি বোমা উদ্ধার করা হয়েছে। গ্রামে পুলিশ ও RAF-এর টহল চলছে।


CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  আয়না ২০১৮

  MAJOR CITIES