• A
  • A
  • A
লোকসভার চাবিকাঠি থাকবে দিদির হাতেই : শুভেন্দু

মালদা, ১১ জানুয়ারি : "আগামী লোকসভা নির্বাচনে কেউ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে না। তাই এখন থেকেই BJP বিরোধী সমস্ত দল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে যোগাযোগ করে যাচ্ছে। শুধু বিরোধীরাই নয়, BJP-র অনেক বড় নেতাও এখন বলতে শুরু করেছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই একমাত্র প্রধানমন্ত্রী পদের উপযুক্ত।" আজ বামনগোলার পাকুয়াহাটে আয়োজিত এক জনসভায় এই মন্তব্য করলেন তৃণমূলের অন্যতম শীর্ষ নেতা ও মালদা জেলার শাসকদলের পর্যবেক্ষক শুভেন্দু অধিকারী। ১৯ জানুয়ারি ব্রিগেড সমাবেশ সফল করতে আজ এই সভার আয়োজন করে শাসকদল। সভায় উপস্থিত ছিলেন মালতিপুরের প্রাক্তন RSP বিধায়ক আবদুর রহিম বক্সি, জেলা সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন, দুই প্রাক্তন মন্ত্রী সাবিত্রী মিত্র ও কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরি, জেলা পরিষদের সভাধিপতি গৌরচন্দ্র মণ্ডলসহ জেলার তৃণমূল নেতৃত্ব।

Loading the player...
শুনুন শুভেন্দু অধিকারীর নক্তব্য


দলীয় কর্মসূচিতে গতকাল মালদায় আসেন শুভেন্দুবাবু। গতরাতে তিনি পুরাতন মালদায় পঞ্চায়েত সদস্য সহ দলীয় নেতাদের নিয়ে একটি রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন। আজ দুপুর ৩টে নাগাদ বামনগোলা ব্লক তৃণমূল আয়োজিত এই জনসভায় যোগ দেন। সেখানে প্রথমেই তিনি রহিম সাহেব সহ অন্যান্যদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন। সভায় রাজ্য সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পের কথা তুলে ধরেন। BJP-কে আক্রমণ করে বলেন, "এখন কেন্দ্রে রয়েছে একটা জোংলা অর্থাৎ মিথ্যাচার ও প্রতিশ্রুতি ভঙ্গের সরকার। BJP গত লোকসভা নির্বাচনে দেওয়া নিজেদের একটি প্রতিশ্রুতিও পালন করতে পারেনি। যা হয়েছে তা হল, নীরব মোদি কা সাথ BJP-কা বিকাশ।" তিনি আরও বলেন, "১১৬০ কোটি টাকা দিয়ে দিল্লিতে নিজেদের প্রাসাদের মতো পার্টি অফিস ছাড়া এই দলটা আর কিছু করতে পারেনি। সেই কারণে এখন কপিলমুনির আশ্রমের মহন্তও বলেছেন, ভোট এলে BJP ভগবান রামচন্দ্রকেও নিজেদের পোলিং এজেন্ট বানিয়ে দিচ্ছে।" BJP-কে নিশানা করে তিনি বলেন, "গত পঞ্চায়েত ভোটে পাকুয়াহাটের BJP গ্রাম পঞ্চায়েত বলেছিল, রাজ্যের টাকা লাগবে না। তারা নাকি দিল্লি থেকে টাকা এনে উন্নয়নের কাজ করবে। কিন্তু ৪ মাসে কী হল? এখন তারা কান্নাকাটি শুরু করেছে।"


শুভেন্দুবাবু দাবি করেন, "এই রাজ্যের প্রকৃত উন্নয়ন একমাত্র দিদিই করেছেন। ১৯২৫ সালে পণ্ডিত রঘুনাথ মুর্মু অলচিকি ভাষার প্রবর্তন করেছিলেন। ২০০৩ সালে সাঁওতালি ভাষা লেখা হয়েছিল। CPI(M) কিংবা BJP সাঁওতালি ভাষাকে স্বীকৃতি দেয়নি। কিন্তু এখন প্রাথমিক স্কুলে সাঁওতালি ভাষায় পঠনপাঠন হচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রী নদিয়ার সভায় ঘোষণা করেছেন, যেসব উদ্বাস্তু এখনও জমির বন্দোবস্ত করতে পারেননি, তাঁদের জমির মালিকানা দেওয়া হবে। তার প্রমাণও তিনি মেদিনীপুর ও আলিপুরদুয়ারে রেখেছেন।" তিনি আরও বলেন, "কেন্দ্রীয় সরকার চালাকি করে একাধিক প্রকল্প নিজেদের বলে চালাতে চাইছে। কিন্তু তারা প্রতিটি প্রকল্পেই টাকা কম দেয়। তাই দিদি বলেছেন, তাদের টাকা তিনি নেবেন না। কোনও প্রকল্পে কেন্দ্রের নামও রাখবেন না। রাজস্থান, ছত্তিশগড়, মধ্যপ্রদেশ প্রমাণ করে দিয়েছে BJP-র কাউন্টডাউন শুরু হয়ে গেছে। এখানে CPI(M) আর কংগ্রেসের লোকজনই BJP করে।" যার উদাহরণ হিসাবে তিনি হবিবপুরের CPI(M) বিধায়ক খগেন মুর্মু ও পুরাতন মালদার কংগ্রেস বিধায়ক ভূপেন্দ্রনাথ হালদারের নাম উল্লেখ করেন।

শুভেন্দুবাবু বলেন, "BJP বিভিন্ন সময় তৃণমূলের বিরুদ্ধে মুসলমান আর হিন্দু তোষণ করার অভিযোগ এনেছে। কিন্তু আদালতে তাদের গালে থাপ্পড় পড়েছে। কিন্তু আমাদের সরকার আদিবাসীদের আড়াইশোরও বেশি জহর থান সংস্কার করেছে।"

আজকের বক্তব্যে শুভেন্দুবাবু ধানের সহায়ক মূল্য এবং সরকারি শিবিরে ধান বিক্রির ক্ষেত্রে কৃষকদের হেনস্থার বিষয়টিও তুলে ধরেন। নাম না করে দক্ষিণ মালদার সাংসদ আবু হাসেম খানকে তীব্র আক্রমণ করেন তিনি। বলেন, "উনি NRI সাংসদ। সম্প্রতি উনি নাকি বলেছেন, লোকসভা ভোটে হয় কংগ্রেস অথবা BJP-কে ভোট দিতে হবে। কিন্তু সবাই জানে, এবারের লোকসভা ভোটে কেউ একা ২৭২ আসন পাবে না। কিন্তু এখান থেকে দিদি ৪২টি আসন নিয়ে যাবেন। আর চাবিটা তাঁর কাছেই থাকবে। তাই তেলাঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রশেখর রাও ভোটে জিতেই দিদির সঙ্গে দেখা করতে কলকাতায় চলে এলেন। জম্মু ও কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লাও দিদির সঙ্গে দেখা করতে আসেন। BJP-র সাংসদ রাম জেঠমালানি লিখে জানিয়েছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত। BJP-র অরুণ শৌরি, যশবন্ত সিনহা, শত্রুঘ্ন সিনহার মতো নেতারাও এখন দিদিকে সমর্থন জানাচ্ছেন।

CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  আয়না ২০১৮

  MAJOR CITIES