• A
  • A
  • A
আসছে শালপাতার ঘড়ি

বিষ্ণুপুর, ৩ জানুয়ারি : বিষ্ণুপুর মহকুমা প্রশাসনের উদ্যোগে বাজারে আসতে চলেছে শালপাতার ঘড়ি। আদিবাসী মহিলাদের স্বনির্ভর করতেই এই উদ্যোগ বলে জানান মহকুমা প্রশাসন। বিষ্ণুপুর পোড়ামাটির হাটে এই ঘড়ি প্রথমবারের জন্য বাজারে আনা হবে। প্লাস্টিক ও থার্মোকল নিষিদ্ধ হতেই পাতার চাহিদা আবার বাড়তে শুরু করেছে। তাই শালপাতার তৈরি এই ঘড়ি তৈরি বাজারে নজর কাড়বে বলে আশাবাদী মহকুমা প্রশাসন।

Loading the player...
ভিডিয়োয় শুনুন বিষ্ণুপুরের মহকুমাশাসক মানস মণ্ডলের বক্তব্য


বিষ্ণুপুর ঘরানার সংগীত, বালুচরি, স্বর্ণচরি বিশ্বের দরবারে নিজগুণেই স্থান করে নিয়েছে। এবার জঙ্গলমহলের আদিবাসী মহিলাদের তৈরি শালপাতার থালার উপর পড়ছে আধুনিকতার প্রলেপ। উপহার সামগ্রী হিসেবে তৈরি হচ্ছে শালপাতার ঘড়ি। এই ঘড়ি তৈরির খরচও কম। এর জেরে হারিয়ে যাওয়া শালপাতার ব্যবহার নতুন মাত্রা আনবে বলে আশাবাদী পর্যটন দপ্তর। বিষ্ণুপুরের মহকুমাশাসক মানস মণ্ডল বলেন, "বছর শুরু হলেই প্রিয়জনদের উপহার সামগ্রী দিতে হয়। ডায়েরি, ক্যালেন্ডার ইত্যাদির পরিবর্তে শালপাতার ঘড়ি মন্দ হবে না। এটি সারাবছর মানুষের কাছে থাকবে। এই ভাবনা নিয়েই আমরা উদ্যোগ নিয়েছি। এর মাধ্যমে মূলত বিষ্ণুপুর টুরিজ়মের এক বিশেষ দিক ফুটিয়ে তোলা হবে। শালপাতাকে শুধু মোড়ক বা খাবার থালা হিসেবে ব্যবহার না করে ঘর সাজানোর সামগ্রী হিসেবে ব্যবহার করার চেষ্টা করছি আমরা। এছাড়া আদিবাসী ভাইবোনদের স্বাবলম্বী করতে এই শালপাতার ঘড়ি অনেকখানি সাহায্য করবে।"


মহকুমা প্রশাসনের তরফে আরও জানানো হয়েছে, রাজ্য সরকারের ক্ষুদ্র কুটিরশিল্প দপ্তর নানাভাবে শিল্পীদের আগ্রহী করার চেষ্টা করছে। ১০০ টি শালপাতার থালা বুনে আদিবাসী মহিলারা এখন মাত্র ১০-১৫ টাকা রোজগার করেন। শালপাতার ঘড়ি বাজারে এলে তাঁদের আয় দশগুণ বৃদ্ধি পাবে।


CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  আয়না ২০১৮

  MAJOR CITIES