• A
  • A
  • A
পুলিশি হেনস্থার অভিযোগ, বিক্ষোভ ধান ব্যবসায়ীদের

খন্যান(হুগলি), ৬ জানুয়ারি : কখনও মুখ্যমন্ত্রী ফড়ে বলছেন। আবার কখনও পুলিশি হেনস্থার স্বীকার হতে হচ্ছে বলে অভিযোগ ধান ব্যবসায়ীদের। এর প্রতিবাদে গতকাল খন্যান জি টি রোডের একাংশ প্রায় ঘণ্টাখানেক অবরোধ করে রাখল তারা।

Loading the player...

হুগলিতে পাণ্ডুয়া ব্লকসহ একাধিক জায়গার ধান ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলে অভিযোগ। তাদের দাবি, ন্যায্য মূল্যে চাষিদের কাছে ধান কিনে রাইস মিলে সাপ্লাই দেয় তারা। কিন্তু পুলিশ ধান বোঝাই গাড়ি দেখলে হেনস্থা করছে। জেলে পোরার হুমকি দিচ্ছে। তাছাড়া খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ব্যবসায়ীদের ফড়ে, দালাল বলে আখ্যা দিচ্ছেন। এভাবে চলতে থাকলে সংসার নিয়ে পথে বসতে হবে বলে আক্ষেপ করছে তারা। তাদের দাবি, এরকম চলতে থাকলে তাদের অন্নসংস্থানের ব্যবস্থা করে দিক মুখ্যমন্ত্রী।


গতকাল থেকে রাজ্যে শুরু হয়েছে 'ধান দিন চেক নিন' কর্মসূচি। ফলে সিঙ্গুরে তাপসী মালিক কৃষক বাজারে পর্যবেক্ষণে আসেন কৃষি উপদেষ্টা প্রদীপ মজুমদার। সঠিক নিয়মে ধান কেনার প্রক্রিয়ার বিষয়টি খতিয়ে দেখেন তিনি। ক্ষুদ্র প্রান্তিক চাষিদের ন্যায্য মূল্যের ধানের দাম পাওয়ার সমস্যার জন্যই মুখ্যমন্ত্রীর এই উদ্যোগ। বিভিন্ন কিষান মান্ডিতে গিয়ে চাষিদের থেকে সরাসরি ধান কিনছে বর্তমান সরকার। এখানে কোনও মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা থাকছে না। তাই এই ধরনের ব্যবসায়ীদের আবার রুটিরুজিতে টান পড়ছে। এমন কী যদি কোনও ব্যবসায়ী নগদে চাষিদের ধান কেনেন। তাদের গাড়ি আটক করছে পুলিশ। বিভিন্ন কেস দিয়ে জেলে ভরে দিচ্ছে বলেও অভিযোগ উঠছে। নগদ টাকা দিয়ে ব্যবসা করেও দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে তাদের। ফলে এর প্রতিবাদে সরব হয়েছে ব্যবসায়ীরা।

প্রায় ৫০০ জন ব্যবসায়ী গতকাল জিটি রোড অবরোধ করে। শুধু হুগলি নয়, বর্ধমানসহ অন্যান্য জেলায়ও এই একই সমস্যায় পড়তে হচ্ছে তাদের।

এক ব্যবসায়ী মানস মাঝি বলেন, "আমরা কয়েক বছর ধরে ব্যবসা করছি। চাষিদের কাছ থেকে নগদে ধান কিনে রাইস মিলে বিক্রি করে টাকা পাই। দিদি আজ আমাদের বলছে ফড়ে, দালাল। কিন্তু আমরা চাষিদের কাছে ন্যায্য মূল্যে ধান কিনছি। আমাদের পুলিশ বিভিন্ন কেসে ফাঁসাছে। তাহলে আমাদের স্বীকৃতি দিক সরকার।"

শেখ আমিনুর রহমানের অভিযোগ, দিদি বলছেন ফড়ে হটাও। এই ব্যবসার ক্ষেত্রে একাধিক লোকজন জড়িত। যদি ফড়ে হটাতে বলেন তাহলে দিদি একটা কর্মসংস্থান করে দিন আমাদের। আমরা চাষিদের কাছ থেকে ধান কিনলে আমাদের কাছে কাগজপত্র চাওয়া হচ্ছে। আমরা না কি কিষান মান্ডিতে বিক্রি করছি। তিনি আমাদের দিকে আঙুল তুলছেন। কিষান মান্ডির অফিসাররা ঘুষ খান না ? আগে তাদের ধরুন। তারপর আমাদের পেটে মারবেন।


CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  আয়না ২০১৮

  MAJOR CITIES