• A
  • A
  • A
মুখ্যমন্ত্রীর ডাকে "না", আয়কর বিভাগের সঙ্গে বসতেই চায় দুর্গোৎসব ফোরাম

কলকাতা, ১১ জানুয়ারি : "একটাও দুর্গাপুজো বন্ধ হলে আমরা ছেড়ে কথা বলব না"। আজ বারাসতের সভায় এই মন্তব্য করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি পুজো কমিটিগুলোকে আহ্বান জানিয়েছেন, ইনকাম ট্যাক্সের ডাকে কাউকে না যেতে। মুখ্যমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিল না "ফোরাম ফর দুর্গোৎসব"। ৩৫০-র বেশি দুর্গাপুজো কমিটি যে ফোরামের সদস্য, তার সভাপতি জানিয়ে দিলেন, আয়কর দপ্তরে অফিসারদের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন তাঁরা। আয়কর দপ্তর সূত্রে খবর, বৈঠক হতে চলেছে আগামী মে মাসে। এর মাঝে নোটিশ পাঠানো হবে না কোনও পুজো কমিটিকেই। জমা দিতে হবে না আয়করের হিসেবও। লক্ষ্য শুধুমাত্র TDS(ট্যাক্স ডিডাকটেড অ্যাট সোর্স)। তারা বিষয়টি নিয়ে কথা বলবে "ফোরাম ফর দুর্গোৎসব"-এর সঙ্গে।

ছবিটি প্রতীকী


আজ বারাসতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, "দুর্গাপুজোর কমিটিগুলিকে আয়কর দপ্তর নোটিশ পাঠিয়েছে। বলেছে, হিসেব দাও। সবাইকে না কি আয়কর দিতে হবে। তোমাদের উদ্দেশ্য কি দুর্গাপুজো বন্ধ করে দেওয়া? দুর্গাপুজো বন্ধ করার চেষ্টা হলে, একটাও দুর্গাপুজো কমিটির গায়ে হাত পড়লে মোদিবাবু আমরা ছেড়ে কথা বলব না।" অথচ দুর্গাপুজো কমিটির সদস্য তথা ফোরাম ফর দুর্গোৎসবের সভাপতি পার্থ ঘোষ বলেন, "আমরাই আয়কর দপ্তরকে প্রস্তাব দিয়েছি, কমিটিগুলোকে আলাদা আলাদা ভাবে না ডেকে ফোরামকে চিঠি দিতে। কোনও একটা হল ভাড়া করে সেখানে কমিটিগুলোর সঙ্গে বসতে। সেক্ষেত্রে সব কমিটির সঙ্গে কথা বলা হয়ে যাবে।" আয়কর দপ্তরের এক কর্তা জানান, বিষয়টিতে জটিলতার কিছু নেই। ফোরাম ফর দুর্গোৎসবের পক্ষ থেকে আমাদের কাছে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে, সবার সঙ্গে বৈঠকে বসার। আশা করা যাচ্ছে আগামী মে মাসে এই বৈঠক হবে। তাঁরা পুজো কমিটির আয়ের বিষয়ে কিছু জানতে চাইছেন না বলেও জানাচ্ছেন ওই কর্তা। শুধুমাত্র যারা মোটা টাকা পেমেন্ট পান তাদের দিকেই নজরদারির সাহায্য চাইছে সংস্থা। আয়কর দপ্তরের বক্তব্য, "আমরা চাইছি যে নিয়ম আছে সেটাই মানার। বেশ কয়েকটি পুজো সংগঠন আছে যারা এই নিয়ম মানে। চাই সংখ্যাটা আরও বাড়ুক। সেই সচেতনতা তৈরি করতে এই ব্যবস্থা।"


সংঘাতের জায়গা নেই। বরং সহযোগিতার সহাবস্থান। পুজোকমিটি এবং আয়কর দপ্তরের কর্তাদের বৈঠকের নির্যাস এটাই। আয়কর দপ্তরের এক কর্তা বলেন, "আমরা জানতে পেরেছি কলকাতায় প্রায় হাজার কোটি টাকার দুর্গাপুজো হয়। তার মাঝে এক পারসেন্ট TDS কেটে পাওনাদারদের টাকা পেমেন্ট করলে দাঁড়ায় ১০ কোটি টাকা। সেটা আমাদের যত রেভেনিউ হয় তার তুলনায় নগণ্য। আমরা শুধুমাত্র চাইছি নিয়মটা মানা হোক।" ২০১৮ সাল কিংবা তার আগে যারা নিয়ম মানেনি তাদের ক্ষেত্রে কি কোনও শাস্তিমুলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে? এই প্রশ্নের উত্তরে আয়কর দপ্তরের ওই কর্তা বলেন, "একেবারেই না। আমরা শুধুমাত্র সচেতনতা তৈরি করছি। এখন যদি দশটি পুজোকমিটি নিয়ম মানে আগামীদিনে ৫০টি মানবে সেই চেষ্টা চালাচ্ছি।"

বিষয়টি নিয়ে আপত্তি তোলেনি ফোরাম ফর দুর্গোৎসবও। সভাপতি পার্থ ঘোষ বলেন, "আমরাই প্রস্তাব দিয়েছি যাতে ফোরামকে চিঠি দেওয়া হয়। তবে সবকটি বড় পুজো কমিটি জানতে পারবে পুরো বিষয়টা। আমরা আয়কর দপ্তরকে বলেছি কোনও একটা হলে মিটিং করতে। আমাদেরকে একটা চিঠি দিলেই হবে। সেই চিঠি আমরা সবাইকে পৌঁছে দেব‌।" কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী তো বলেছেন আয়কর দপ্তরের ডাকে সাড়া না দিতে? এর উত্তরে পার্থবাবু বলেন, "অনেকগুলো পুজোকমিটি তো ইতিমধ্যেই দেখা করে ফেলেছে। আগামীদিন যাদের ডাকা হয়েছে তারা কী করবেন সেটা তাদের বিষয়। তবে আমাদের চিটি পাঠালে আমরা বিষয়টা নিয়ে বসে আলোচনা করে ঠিক করব আগামীদিনে কী করা হবে।"


CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  আয়না ২০১৮

  MAJOR CITIES