• A
  • A
  • A
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যা করেন, অন্তর থেকে করেন : পার্থ

শান্তিপুর, ৩০ নভেম্বর : "আমরা ভোটের রাজনীতি করি না। আমাদের নেত্রী (মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়) যা করেন, অন্তর থেকে করেন।" বিষমদ খেয়ে মৃত্যুর ঘটনায় মৃতদের পরিবারকে দু'লাখ টাকা দেওয়া নিয়ে রাজ্য সরকারকে বিরোধীদের সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছিল। সে প্রসঙ্গে আজ শান্তিপুরে চেক প্রদানের পর একথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

Loading the player...
ভিডিয়োয় শুনুন পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বক্তব্য


লোকসভা ভোটের আগে এলাকার মানুষের ক্ষোভ কমাতে টাকা দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলেছে বিরোধীরা। সেই অভিযোগতে তুড়ি মেরে উড়িয়ে পার্থবাবু বলেন, "আমি এসেছি মানুষের পাশে দাঁড়াতে। আমি আশ্বাস দিয়েছি যে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁদের পাশে রয়েছেন। অসহায় পরিবারগুলি যদি কোনও প্রকল্পের সুযোগ না পায়, তাহলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জেলাশাসককে বলেছি।" তবে, তৃণমূলের মহাসচিব বলেন, তাঁরা ক্ষমতায় রয়েছেন বলে যে এসেছেন, তো মোটেও নয়। তাঁর বক্তব্য, "আমরা ভোটের রাজনীতি করি না। আমাদের নেত্রী যা করেন, অন্তর থেকে করেন। বিরোধী দলে যখন ছিলাম তখন মগরাহাটে এরকম হয়েছিল, আমরা সেখানে গিয়েছিলাম।"
শান্তিপুরে এসে কী দেখলেন আপনি? সে প্রশ্নের উত্তরে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, "তাঁদের (মৃতদের) পরিবারের সঙ্গে কথা বললাম। হতভাগ্য পরিবার। একেবারে দরিদ্র। তাঁদের মধ্যে এক বাচ্চা মেয়েকে দেখলাম। তিনমাস আগে বিয়ে হয়েছে তার। তাঁদের বললাম, এই অভ্যেস থেকে সবাইকে সরিয়ে নিতে।" তিনি জানান, অসুস্থদের দেখার দায়িত্ব নিয়েছে সরকার।


পার্থবাবু এলাকায় যাওয়ার কিছুক্ষণ পরেই সেখানে আসবে BJP-র প্রতিনিধিদল। সে প্রসঙ্গে BJP-কে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, "ধুলো উড়িয়ে এখানে এসে লাভ হবে না। আমরা একটা টিম। তারাই নদিয়া জেলাকে তৈরি করছে। তাই আমি বলছি এখানে এসে কোনও লাভ হবে না। এটা রাজনীতির জায়গা না। মানুষের পাশে দাঁড়ান। এটা ৩৬৫ দিনের মধ্যে ১ দিন পাশে দাঁড়ান না। ৩৬৫ দিনই মানুষের পাশে থাকা। সেটা থাকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।" তিনি আরও একধাপ এগিয়ে প্রশ্ন করেন, "তারা দেখতে আসছে কেন? তারা রাজনৈতিক সংঘর্ষে মারা যায়নি। কী কারণে আসছেন? প্লেন খরচা করে কেন আসছে? অসহায় মানুযদের পাশে সরকার বা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দাঁড়ালে তার সমালোচনা করছেন। আর তার সমালোচনা করে আবার নিজেরা আসছেন। উদ্দেশ্যটা কী?" তিনি বলেন, বিরোধীদের এসে ঘোলা জলে মাছ ধরার কোনও দরকার নেই। তিনি বলেন, "কারণ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে উপর থেকে বিষয়টা দেখছেন।"


CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  আয়না ২০১৮

  MAJOR CITIES