• A
  • A
  • A
বইয়ের ভূমিকায় মানুষ, দেশের প্রথম হিউম্যান লাইব্রেরি কলকাতায়

নিউটাউন, ৭ জানুয়ারি : একজন ক্যান্সার আক্রান্ত মানুষ বলছেন তাঁর জীবনের গল্প। শোনাচ্ছেন, কীভাবে জীবনযুদ্ধে লড়াই করছেন, তিলে তিলে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন। শুধু ক্যান্সার আক্রান্ত সেই মানুষটিই নয়, প্রতিদিন নিয়ম করে নিজেদের কথা দর্শকদের কাছে বলছেন আরও অনেকে। এদের মধ্যে কেউ এডসে আক্রান্ত, কেউ যৌনকর্মী, কেউ আবার শিল্পী। এতদিন বইয়ের পাতায় এরকম বিষয় পাওয়া যেত। এবার মানুষের মুখেই শোনা যাবে সেই সব গল্প। এর পোশাকি নাম হিউম্যান লাইব্রেরি। দেশের মধ্যে প্রথম এই হিউম্যান লাইব্রেরি চালু হল কলকাতার নিউটাউনে। একটি বেসরকারি সংস্থার উদ্যোগে চালু হয় এই হিউম্যান লাইব্রেরির।

Loading the player...

২০০০ সাল। ডেনমার্কে কোপেনহেগেন শহরে প্রথম চালু হয় হিউম্যান লাইব্রেরি। রনি অ্যাবারগাল এই লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠা করেন। আমাদের সবারই বলার মতো অনেক গল্প থাকে। আমাদের চারপাশে এমন অনেক মানুষ আছে যাদের কর্মকাণ্ড নিয়ে মনে প্রশ্ন জাগে। অথবা এমন অনেক মানুষকে দেখি যাদের জীবন সম্পর্কে জানতে আমাদের আগ্রহ হয়। কিন্তু সামাজিক বাধ্যবাধকতার কারণে আমরা জানতে পারি না। বা কেউ বলতে চাইলেও বলার মতো পরিবেশ পান না। এইসব মানুষদের একত্র করেই শুরু হয় হিউম্যান লাইব্রেরি। সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ নিজেদের গল্প শোনান এখানে। ভাগ করে নেন নিজেদের অভিজ্ঞতা। এই ধারণা থেকেই শুরু হয় হিউম্যান লাইব্রেরি।
কলকাতায় হিউম্যান লাইব্রেরি চালু করার পিছনে যাঁদের উদ্যোগ ও পরিশ্রম ছিল তাঁদের অন্যতম দেবলীনা সাহা বলেন, "আমি কোনও মানুষকে বিচার করি না। কিন্তু আমাদের প্রত্যেককেই কোনও না কোনও সময়ে তথাকথিত সমাজ বিচার করে থাকে। এই লাইব্রেরির মাধ্যমে আমরা তথাকথিত সমাজ থেকে মুক্তি পেতে পারি। আমরা একে অপরের ভাবনাকে তুলে ধরতে পারি। অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিতে পারি।"


গতকাল হিউম্যান লাইব্রেরি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের অন্যতম IAS অফিসার দেবাশিস সেন। তিনি বলেন, "হাতের পাঁচটা আঙুল সমান হয় না। জীবনে কেউ কেউ পিছিয়ে পড়ে তাঁদের সমাজের মূল স্রোতে ফিরিয়ে আনা আমাদের দায়িত্ব। আর এই দায়িত্বকে পালন করার জন্য কিছু অভিনব পন্থা নিতে হয়। হিউম্যান লাইব্রেরি হল সেই অভিনব পন্থা যার মাধ্যমে সমাজের পিছিয়ে পড়া মানুষগুলোর দিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করা যায়। আমরা রাম লক্ষ্মণের গল্প পড়তে ভালোবাসি। কিন্তু বাস্তব জীবনের রাম লক্ষ্মণরা যখন গল্প বলে তার একটা বিস্তর প্রভাব পড়ে মানুষের মনে।"

আর পাঁচটা বুক লাইব্রেরির মতোই দিনের নির্দিষ্ট সময় শুরু হয় হিউম্যান লাইব্রেরি। কিন্তু বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতার কারণে নিউটাউনে স্থায়ীভাবে চালু করা যায়নি এই লাইব্রেরি। দেবলীনা জানিয়েছেন, এর জন্য টাকা-পয়সা, লোকবল ও জায়গায় প্রয়োজন। সেগুলো পেলেই স্থায়ীভাবে চলতে পারবে হিউম্যান লাইব্রেরি।



CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  আয়না ২০১৮

  MAJOR CITIES