• A
  • A
  • A
"আমি কি আত্মহত্যা করব?" প্রশ্ন তৃণমূল কাউন্সিলরের হাতে প্রহৃত মহিলার

নোয়াপাড়া, ৮ জানুয়ারি : রাস্তা দিয়ে ইটের ভ্যান নিয়ে যাওয়ার বিরোধিতা করায় এক মহিলাকে মাটিতে ফেলে মারধরের অভিযোগ উঠল। অভিযুক্ত উত্তর ব্যারাকপুর পৌরসভার ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ব্রততী সেন ও স্বামী সুব্রত সেন। আক্রান্তের নাম শ্যামলী সরকার (৫৫)। যদিও কাউন্সিলর অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি পালটা মহিলার বিরুদ্ধে মারধরের অভিযোগ তুলেছেন। ঘটনাটি নোয়াপাড়া থানার ইছাপুর নবাবগঞ্জ শাঁখারীপাড়া এলাকার।

Loading the player...
আক্রান্ত মহিলা


আক্রান্ত মহিলার কথায়, "আমার বাড়ির পাশে একটি সরু রাস্তা রয়েছে। সেখান দিয়ে কাউন্সিলর নিজের জমির জন্য ইটবোঝাই ভ্যান নিয়ে যেতেন। এভাবে রাস্তা পুরো ভেঙে যাচ্ছে। তার বিরোধিতা করতে কাউন্সিলর ও তাঁর স্বামী আমাকে ফেলে মারধর করেছেন। তলপেটে মেরেছেন। আমার খুড়তুতো ভাইকেও মারা হয়েছে।" মারধরের ফলে তলপেট ও হাতে চোট পান মহিলা। ব্যারাকপুর BN বসু হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসার তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়। চিকিৎসক তাঁকে পেটের আলট্রাসনোগ্রাফি করার পরামর্শ দেন। শ্যামলীদেবী বলেন, "ওরা সকলের সঙ্গে এরকম ব্যবহার করেন। কারোর সঙ্গে কখনও ভালো ব্যবহার করেননি। করবে বলে আশাও করি না। কিন্তু, আমার নামে কেন বদনাম দিচ্ছে ? আমি তো একা থাকি। তাহলে আমি কি আত্মহত্যা করব?"
যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছেন কাউন্সিলর। তিনি পালটা বলেন, "উনি সব বিষয়েই আপত্তি তোলেন। আমি ওই রাস্তায় পাইপ ঢুকিয়ে দেব বলেছিলাম, সেটা করতে দেননি। উনি পায়ে পা তুলে ঝগড়া করেন। ওঁর উপরে কেউ কথা বলতে পারবে না !" নোয়াপাড়া থানায় একে অপরের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  আয়না ২০১৮

  MAJOR CITIES