• A
  • A
  • A
মধ্যমগ্রামে নিখোঁজ BJP-র জয়ী সদস্য যোগ দিলেন তৃণমূলে

মধ্যমগ্রাম, ১০ জানুয়ারি : আমডাঙার মরিচা পঞ্চায়েত এলাকার BJP-র জয়ী সদস্য সোমনাথ ওরাঙ্গ যোগ দিলেন তৃণমূলে। তৃণমূলে যোগ দেওয়ার আগে তাঁকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না বলে সূত্রের খবর। গতকাল বিকেলে তিনি তৃণমূলে যোগ দেন। তাঁকে সঙ্গে নিয়েই মধ্যমগ্রামে জেলার পার্টি অফিসে ঢোকেন উত্তর ২৪ পরগনার জেলা তৃণমূলের সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। প্রাক্তন ওই BJP সদস্যকে পাশে বসিয়ে সাংবাদিকদের সামনে তিনি দাবি করেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের উন্নয়নের শরিক হতেই সোমনাথ BJP ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। সম্পূর্ণ স্বেচ্ছায় তাঁর এই যোগদান।

Loading the player...

তৃণমূলে যোগদানের আগে সোমনাথের নিখোঁজ হওয়ার পিছনে তাদের হাত আছে কি না তা জানতে চাইলে জ্যোতিপ্রিয়বাবু সরাসরি উত্তর না দিয়ে বলেন, "এব্যাপারে তৃণমূলে যোগ দেওয়া BJP সদস্যই যা বলার বলবেন।" সদ্য শাসকদলে যোগ দেওয়া BJP সদস্য সোমনাথ ওরাঙ্গের গলায়ও শোনা গেছে একই সুর। তিনি বলেন, "কোনও ভয় ভীতি থেকে তৃণমূলে যোগ দিইনি। স্বেচ্ছায় ও মুখ্যমন্ত্রীর উন্নয়নের শরিক হতেই এই যোগদান।"
তিনি কেন এতদিন নিখোঁজ ছিলেন, সেই ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে সোমনাথ বলেন, "কাজের ব্যাপারে বাইরে গেছিলাম। যেহেতু ফোন নিয়ে যাইনি তাই বাড়ির লোক যোগাযোগ করতে পারছিল না। আমার খোঁজ না পেয়েই পরিবার একটু দুশ্চিন্তায় ছিল। এর মধ্যে অন্য কোনও কারণ নেই। এলাকায় গিয়ে BJP-র লোকেদের উন্নয়নের কথাই বলব।" তবে সাংবাদিক বৈঠকে দলবদলের প্রসঙ্গে আত্মবিশ্বাসের বদলে সোমনাথের চোখে মুখে ধরা পড়েছে জড়তা।


সাংবাদিক বৈঠকে জ্যোতিপ্রিয়বাবু বলেন, "আমরা প্রথমেই বলেছিলাম আমডাঙার মরিচা, বোদাই ও তারাবেড়িয়া, এই তিনটি পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন আমরাই করব। কিন্তু, তখন অনেক রাজনৈতিক দলের নেতারা বলেছিলেন, তৃণমূল ভয়ে এই তিনটি পঞ্চায়েতে বোর্ড গঠন করছে না। বোর্ড গঠনের প্রক্রিয়া প্রশাসনের হাতে থাকে। তারা মনে করেছিল, সেখানে এখনও শান্তি প্রতিষ্ঠা হয়নি। তাই বোর্ড গঠন আটকে ছিল। এবার ওই তিনটি পঞ্চায়েতে যাতে দ্রুত বোর্ড গঠন হয়, প্রশাসনকে সেটা দেখতে বলব। কারণ ওই তিনটি পঞ্চায়েতে উন্নয়ন আটকে আছে।"

জ্যোতিপ্রিয়বাবুর অভিযোগ, ৩৪ বছরে CPI(M) ওখানে শুধু বোমা ও গুলির রাজনীতি করেছে। প্রতিবার পঞ্চায়েত ভোট আসলেই তিন-চারজন করে মারা যেত। যা হত, সব তৃণমূলের উপর। কিছুদিন আগেও CPI(M) গ্রামে বোমা নিয়ে ঢুকে অশান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করেছিল। যারা নেতৃত্ব দিয়েছিল, তাদের দু'জন গ্রেপ্তারও হয়েছিল। সোমনাথ ওরাঙ্গের দলবদলের পিছনে আমডাঙার বিধায়ক রফিকার রহমানের কৃতিত্বও তুলে ধরেন জেলা তৃণমূল সভাপতি। সাংবাদিক বৈঠকে সোমনাথ ওরাঙ্গের পাশে তাঁকেও দেখা যায়।

অন্যদিকে ওই প্রাক্তন BJP সদস্যকে হুমকি দিয়ে তৃণমূল নিজেদের দলে টেনেছে বলে অভিযোগ করেন আমডাঙার BJP নেতা অরিন্দম দে। তিনি বলেন, "সোমনাথকে শুক্রবার অপহরণ করে তৃণমূল গোপন আস্তানায় রেখেছিল। সেখানে চাপ দিয়ে তাঁকে দল ছাড়তে বাধ্য করা হয়। ক্ষমতার লোভে ওরা এখন এতটাই বেপরোয়া হয়ে উঠেছে যে আমাদের একজন নির্বাচিত পঞ্চায়েত সদস্যকেও অপহরণ করতে ওদের হাত কাঁপছে না। একদিন না একদিন সাধারণ মানুষই ওদের উচিত শিক্ষা দেবে।"

CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  আয়না ২০১৮

  MAJOR CITIES